প্রথম সাদাত আলি খান

From ইসলামকোষ
Jump to navigation Jump to search
মীর মুহাম্মদ আমিন মুসাউয়ি
আওধের নবাব
বুরহান উল মুলক
খান বাহাদুর
বাহাদুর জং
মীর আতিশ (অস্ত্রাগার প্রধান)
আগ্রা ও আওধের সুবেদার
সাদাত খান
খুলদ-আশিয়ান
বুরহান উল মুলক
রাজত্বকাল ১৭২২-১৭৩৯[১]
জন্ম আনুমানিক ১৬৮০
জন্মস্থান নিশাপুর, খোরাসান, পারস্য
মৃত্যু ১৯ মার্চ ১৭৩৯(১৭৩৯-০৩-১৯)
মৃত্যুস্থান দিল্লি, ভারত
সমাধিস্থল সাদাত খানের সমাধি, দিল্লি
পূর্বসূরি নেই
উত্তরসূরি সফদর জং
সন্তানাদি এক কন্যা
রাজবংশ নিশাপুরি
পিতা মুহাম্মদ নাসির
ধর্মবিশ্বাস শিয়া ইসলাম

সাদাত আলি খান (হিন্দি: सआदत अली खान, উর্দু: سعادت علی خان‎‎) (জন্ম. আনুমানিক ১৬৮০ – মৃত্যু ১৯ মার্চ ১৭৩৯) ১৭২২ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে ১৭৩৯ সাল পর্যন্ত আওধের সুবেদার নবাব ছিলেন।[২] পঁচিশ বছর বয়সে তিনি তার পিতা মুহাম্মদ নাসিরের[৩] সাথে মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেবের শেষ যুদ্ধাভিযানে অংশ নিয়েছিলেন। দক্ষিণাত্যে মারাঠাদের বিরুদ্ধে এই অভিযান পরিচালিত হয়। যুদ্ধে অবদানের জন্য তাকে খান বাহাদুর উপাধি দেয়া হয়।

জীবন[edit | edit source]

সাদাত আলি খানের জন্মনাম মুহাম্মদ আমিন মুসাউয়ি। তার বাবা মুহাম্মদ নাসির মুসাউয়ি ছিলেন খোরাসানের একজন শিয়া মুসলিম বণিক।[৪] মুঘল সম্রাট শাহজাহানের শাসনামলে তার দাদা ভারতে অভিবাসী হন। সাদাত আলি খানের বাবা প্রথম বাহাদুর শাহের শাসনামলে একজন গুরুত্বপূর্ণ সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন।[৪]

কর্মজীবন[edit | edit source]

সম্রাট মুহাম্মদ শাহের শাসনের সূচনাকালে সাদাত আলি খান বায়ানার ফৌজদার (গেরিসন কমান্ডার) ছিলেন। নাদির শাহের বিরুদ্ধে কারনালের যুদ্ধে তিনি ছিলেন অন্যতম নেতৃত্বদানকারী মুঘল সেনাপতি।[৪] নাদির শাহের দিল্লি হত্যাকান্ডের একরাত পূর্বে তিনি ধরা পড়েন ও মারা যান। দিল্লিতে তার ভাই সায়াদাত খানের সমাধিতে তাকে দাফন করা হয়েছে।[৪]

সন্তান ও উত্তরাধিকার[edit | edit source]

সাদাত আলি খানের একমাত্র কন্যার সাথে তার ভাই সায়াদাত খানের ছেলে মুহাম্মদ মুকিমের বিয়ে হয়। মুহাম্মদ মুকিম সফদর জং নামে পরিচিত ছিলেন। সফদর জং আওধে তার উত্তরাধিকারী হন।[৪]

পূর্বসূরী
--
আগ্রার মুঘল গভর্নর
১৫ অক্টোবর ১৭২০ - ৯ সেপ্টেম্বর ১৭২২
উত্তরসূরী
--
পূর্বসূরী
--
আওধের মুঘল গভর্নর
৯ সেপ্টেম্বর ১৭২২ - ১৭৩২
উত্তরসূরী
--
পূর্বসূরী
নতুন অফিস
আওধের সুবেদার নবাব
১৬৩২ - ১৯ মার্চ ১৭৩৯
উত্তরসূরী
আবুল মনসুর মুহাম্মদ মুকিম খান

তথ্যসূত্র[edit | edit source]

বহিঃসংযোগ[edit | edit source]